রাম রহিমের ‘পালিত কন্যা’ হানিপ্রীতের সন্ধান

ভারতে ধর্ষণের দায়ে সাজাপ্রাপ্ত বিতর্কিত ধর্মগুরু বাবা রাম রহিম সিংয়ের ঘনিষ্ঠ সহযোগী এবং ‘পালিত কন্যা’ হানিপ্রীত সিংকে হরিয়ানা পুলিশ আজ (মঙ্গলবার) বিকেলে গ্রেফতার করেছে।

পুলিশ বলছে, চন্ডীগড়ের কাছে একটি জাতীয় সড়কের ওপর থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। আগামিকাল বুধবার তাকে আদালতে পেশ করা হবে ।

ধর্মগুরু রাম রহিমের বিরুদ্ধে হরিয়ানার পাঁচকুলা শহরেরএক আদালতে সাজা ঘোষণার পর যে ভয়াবহ সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ে, তাতে ইন্ধন দেওয়ার অভিযোগ আনা হয়েছে হানিপ্রীত সিংয়ের বিরুদ্ধে। ঐ সহিংসতায় অন্তত ৩২ জন মারা গিয়েছিলো।

হানিপ্রীত সিং, যিনি নিজেকে রাম রহিমের পালিত কন্যা বলে পরিচয় দেন, তিনি গত বেশ কয়েক সপ্তাহ ধরে লুকিয়ে থাকার পর গতকাল থেকেই অবশ্য বিভিন্ন টিভি চ্যানেলের সঙ্গে কথা বলতে শুরু করেছিলেন।

সেই সব সাক্ষাৎকারে তিনি রাম রহিমের সঙ্গে তার কোনও শারীরিক সম্পর্ক থাকার কথা জোরালোভাবে অস্বীকার করেছেন।

একের পর এক টিভি চ্যানেলে তার সাক্ষাৎকার দেওয়ার পরই ধারণা করা হচ্ছিল হানিপ্রীত সিং সম্ভবত পুলিশের কাছে ধরা দিতে চাইছেন।

বাবা রাম রহিমের খুবই ঘনিষ্ঠ ছিলেন হানিপ্রীত

বাবা রাম রহিমের খুবই ঘনিষ্ঠ ছিলেন হানিপ্রীত

যদিও পাঁচকুলার পুলিশ কমিশনার এ এস চাওলা দাবি করেছেন, হানিপ্রীত সিং আত্মসমর্পণ করেননি। বরং নির্দিষ্ট সূত্রে খবর পেয়ে পুলিশই তাকে চন্ডীগড়ের কাছে পাটিয়ালা-জিরকপুর রোড থেকে গ্রেফতার করেছে।

গত ২৫ আগস্ট যখন পাঁচকুলার সিবিআই আদালত বাবা রাম রহিমকে ধর্ষণে দোষী সাব্যস্ত করে, তারপর যে হেলিকপ্টারে চাপিয়ে রাম রহিমকে রোহটাক জেলে নিয়ে যাওয়া যায় – তাতে হানিপ্রীত সিংও তার সঙ্গী ছিলেন।

কিন্তু সে ঘটনা নিয়ে হইচই শুরু হতে সে দিন রাত থেকেই হানিপ্রীত সিং সম্পূর্ণ উধাও হয়ে যান – পরে নানা অভিযোগে পুলিশ তার বিরুদ্ধে ‘লুক আউট’ নোটিশ জারি করে।

গত চব্বিশ ঘন্টায় দেওয়া নানা সাক্ষাৎকারে হানিপ্রীত সিং অবশ্য বলেছেন তিনি দেশের ভেতরেই ছিলেন, কোথাও পালিয়ে যাননি। তার নেপালে গা ঢাকা দেওয়ার খবরও সম্পূর্ণ ভুয়া বলে হানিপ্রীত দাবি করেন।

তার প্রাক্তন স্বামী বিশ্বাস গুপ্ত ইতিমধ্যে সাংবাদিক বৈঠক করে দাবি করেছেন, তিনি একাধিকবার বাবা রাম রহিমের সঙ্গে হানিপ্রীত সিংকে আপত্তিকর ভঙ্গীতে কিংবা নগ্ন অবস্থায় একসঙ্গে দেখেছেন।

বাবা রাম রহিমের সাজার পর ছড়িয়ে পড়া সহিংসতায় ত্রিশেরও বেশি লোক মারা যায়

বাবা রাম রহিমের সাজার পর ছড়িয়ে পড়া সহিংসতায় ত্রিশেরও বেশি লোক মারা যায়। তখন থেকে লাপাত্তা ছিলেন হানিপ্রীত।

স্বামীর সঙ্গে তার ‘সব সম্পর্ক ছবছর আগে চুকেবুকে গেছে’ বলে জানিয়ে হানিপ্রীত অবশ্য রীতিমতো আবেগপ্রবণ ভঙ্গীতে বলেছেন, “বাবা-মেয়ের সম্পর্ককেও আপনারা কতটা টেনে নিচে নামাবেন? বাবা কি আদর করে মেয়ের মাথাতে হাতও রাখতে পারবে না?”

বাবা রাম রহিম সিংকে ধর্ষণে দোষী সাব্যস্ত করে সিবিআই যে রায় দিয়েছে তার বিরুদ্ধে তিনি হাইকোর্ট বা উচ্চ আদালতে যাবেন বলেও হানিপ্রীত জানান। সেখানে তিনি নির্দোষ প্রতিপন্ন হবেন, হানিপ্রীত এই বিশ্বাসেও অটল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *